النَّاقِصُ বা নাকিস ক্রিয়া

النَّاقِصُ ক্রিয়ার ل কালিমা দুর্বল।  অর্থাৎ শেষ বর্ণ  و বা ي হয়লিখিত রূপে و কে  ا (আলিফ) এবং ي  কে ى (আলিফ মাকসুরা) দ্বারা পরিবর্তন করা হয় অথবা ي ই থেকে যায়যেমনঃ

رَاَى (رَأَيَ)

بَكَى (بَكَيَ)

دَعَا (دَعَوَ)

هَدَى (هَدَيَ)

সে দেখল

সে টিকে গেল

সে ডাকল

সে পথ দেখালো

 

এখানে তাঁর ১৪ টি গঠন দেখি,

الْمَاضِي অতীত কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

دَعَوْا

دَعَوَا

دَعَا

পুং

دَعَوْنَ

دَعَتَا

دَعَتْ

স্ত্রী

دَعَوْتُمْ

دَعَوْتُمَا

دَعَوْتَ

পুং

دَعَوْتُنَّ

دَعَوْتُمَا

دَعَوْتِ

স্ত্রী

دَعَوْنَا

 

دَعَوْتُ

উভয়

 

লক্ষণীয়ঃ

· ৩য় পুরুষের  দ্বিবচনে মূল অক্ষর و ফিরে এসেছে

· ৩য় পুরুষের বহুবচনে ل কালিমা উঠে যায়। যেমনঃ  دَعَوُوْا  دَعَوْا

· .দুই সুকুনের মিলন রোধে دَعَاْتْ  এর দুর্বল অক্ষরটি উঠে গিয়ে হবে دَعَتْ

· মুতাহাররিক সর্বনাম (نَ، تَ، تُمَا، تُمْ، تِ، تُمَا، تُنَّ، تُ، نَا) গুলোতে ل কালিমা স্বরুপে ফিরে আসে।

 

الْمَاضِي অতীত কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

مَشَوْا

مَشَيَا

مَشَى

পুং

مَشَيْنَ

مَشَتَا

مَشَتْ

স্ত্রী

مَشَيْتُمْ

مَشَيْتُمَا

مَشَيْتَ

পুং

مَشَيْتُنَّ

مَشَيْتُمَا

مَشَيْتِ

স্ত্রী

مَشَيْنَا

 

مَشَيْتُ

উভয়

 

الْمَاضِي অতীত কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

نَسُوْا*

نَسِيَا

نَسِيَ

পুং

نَسِيْنَ

نَسِيَتَا

نَسِيَتْ

স্ত্রী

نَسِيْتُمْ

نَسِيْتُمَا

نَسِيْتَ

পুং

نَسِيْتُنَّ

نَسِيْتُمَا

نَسِيْتِ

স্ত্রী

نَسِيْنَا

 

نَسِيْتُ

উভয়

 

* و এর আগে যের হয় না তাই نَسِوْا <  نَسُوْا হবে।

 

          الْمَاضِي অতীত কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

رَأَوْا

رَأَيَا

رَأَى

পুং

رَأَيْنَ

رَأَتَا

رَأَتْ

স্ত্রী

رَأَيْتُمْ

رَأَيْتُمَا

رَأَيْتَ

পুং

رَأَيْتُنَّ

رَأَيْتُمَا

رَأَيْتِ

স্ত্রী

رَأَيْنَا

 

رَأَيْتُ

উভয়

 

النَّاقِصُ ক্রিয়ার  বর্তমান কালে লক্ষ্যণীয়ঃ  

 

মারফুঃ

১. লাম কালিমা (و  বা ي) ফিরে আসে এবং লাম কালিমায় পেশের বদলে সুকুন হয়। যেমনঃ

الْمُضَارِعُ

<=  পরিবর্তন  <=

الْمَاضِي

يَدْعُوْ

يَدْعُوُ

دَعَا (دَعَوَ)  

يَبْكِيْ

يَبْكِيُ

بَكَى (بَكَيَ)

يَنْسَى

يَنْسَيُ

نَسِيَ (نَسِيَ)

 

. ৩য় পুরুষের বহুবচনে ل কালিমা উঠে যায়। যেমনঃ

 يَدْعُوُوْنَ=> يَدْعُوْنَ  যেখানে   وُ তুলে দেওয়া হয়েছে।

يَنْسَيُوْنَ  =>  يَنْسَوْنَ  যেখানে   يُ তুলে দেওয়া হয়েছে।

 تَدْعُوِيْنَ =>  تَدْعِيْنَ যেখানে   وِতুলে দেওয়া হয়েছে আর ي এর আগে পেশ আসে না  তাই   عُকে عِ দ্বারা পরিবর্তন করা হয়েছে।

 

الْمُضَارِعُ    বর্তমান কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

يَدْعُوْنَ

يَدْعُوَانِ

يَدْعُوْ

পুং

يَدْعُوْنَ

تَدْعُوَانِ

تَدْعُوْ

স্ত্রী

تَدْعُوْنَ

تَدْعُوَانِ

تَدْعُوْ

পুং

تَدْعُوْنَ

تَدْعُوَانِ

تَدْعِيْنَ

স্ত্রী

نَدْعُوْ

 

أَدْعُوْ

উভয়

 

الْمُضَارِعُ   বর্তমান কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

يَمْشُوْنَ

يَمْشِيَانِ

يَمْشِيْ

পুং

يَمْشِيْنَ

تَمْشِيَانِ

تَمْشِيْ

স্ত্রী

تَمْشُوْنَ

تَمْشِيَانِ

تَمْشِيْ

পুং

تَمْشِيْنَ

تَمْشِيَانِ

تَمْشِيْنَ

স্ত্রী

نَمْشِيْ

 

أَمْشِيْ

উভয়

 

الْمُضَارِعُ  বর্তমান কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

يَنْسَوْنَ

يَنْسَيَانِ

يَنْسَى

পুং

يَنْسَيْنَ

تَنْسَيَانِ

تَنْسَى

স্ত্রী

تَنْسَوْنَ

تَنْسَيَانِ

تَنْسَى

পুং

تَنْسَيْنَ

تَنْسَيَانِ

تَنْسَيْنَ

স্ত্রী

نَنْسَى

 

أَنْسَى

উভয়

 

 الْمُضَارِعُ   বর্তমান কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

يَرَوْنَ

يَرَيَانِ

يَرَى

পুং

يَرَيْنَ

تَرَيَانِ

تَرَى

স্ত্রী

تَرَوْنَ

تَرَيَانِ

تَرَى

পুং

تَرَيْنَ

تَرَيَانِ

تَرَيْنَ

স্ত্রী

نَرَى

 

أَرَى

উভয়

 

মানসুবঃ

. و  এবং ي দ্বারা শেষ হওয়া ক্রিয়ার উপর যবর উচ্চারিত হয় কিন্তু আলিফ দ্বারা শেষ হওয়া যবর উচ্চারিত হয় না। যেমনঃ لَنْ يَدْعُوَ،   لَنْ يَبْكِيَ    কিন্তু لَنْ يَنْسَى

 

মাজ্জুমঃ

  ل কালিমা উঠে যায়।

যেমন,      لَمْ يَدْعُوْ  =>  لَمْ يَدْعُ   অনুরুপ ভাবে, اُدْعُ

 لَمْ يَبْكِيْ        =>  لَمْ يَبْكِ   অনুরুপ ভাবে, اِبْكِ

 لَمْ يَنْسَىْ       =>  لَمْ يَنْسَ  অনুরুপ ভাবে, اِنْسَ

أَمْرٌ  আদেশ

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

اُدْعُوْا

اُدْعُوَا

اُدْعُ

পুং

اُدْعُوْنَ

اُدْعُوَا

اُدْعِيْ

স্ত্রী

نَهِيْ  নিষেধ

لا تَدْعُوْا

لا تَدعُوَا

لا تَدْعُ

পুং

لا تَدْعُوْنَ

لا تَدعُوَا

لا تَدْعِيْ

স্ত্রী

 

أَمْرٌ  আদেশ

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

اِمْشُوْا

اِمْشِيَا

اِمْشِ

পুং

اِمْشِيْنَ

اِمْشِيَا

اِمْشِيْ

স্ত্রী

نَهِيْ  নিষেধ

لا تَمْشُوْا

لا تَمْشِيَا

لا تَمْشِ

পুং

لا تَمْشِيْنَ

لا تَمْشِيَا

لا تَمْشِيْ

স্ত্রী

 

নাকিস ক্রিয়ার উদাহরণ

الْمَصْدَرُ

أَمْرٌ

الْمُضَارِعُ

الْمَاضِي

ক্রিয়া

تِلَاوَةٌ

اُتْلُ

يَتْلُوْ

تَلَا

তিলাওয়াত করা

دُعَاءٌ

اُدْعُ

يَدْعُوْ

دَعَا

ডাকা

عَفْوٌ

اُعْفُ

يَعْفُوْ

عَفَا

ক্ষমা করা

شِكَايَةٌ

اُشْكُ

يَشْكُوْ

شَكَا

অভিযোগ করা

مَحْوٌ

اُمْحُ

يَمْحُوْ

مَحَا

মুছে ফেলা

رَجَاءٌ

اُرْجُ

يَرْجُوْ

رَجا

আশা করা

مشْيٌ

اِمْشِ

يَمْشِيْ

مَشَى

হাঁটা

سَقْيٌ

اِسْقِ

يَسْقِيْ

سَقَى

পান করানো

بِنَاءٌ

اِبْنِ

يَبْنِيْ

بَنَى

বানানো

بَغْيٌ

اِبْغِ

يَبْغِيْ

بَغَى

খুব চাওয়া

نَهْيٌ

اِنْهَ

يَنْهَى

نَهَى

নিষেধ করা

جَرَيَانٌ

اِجْرِ

يَجْرِي

جَرَى

প্রবাহিত হওয়া

قَضَاءٌ

اِقْضِ

يَقْضِي

قَضَى

বিচার করা

كِفَايَةٌ

اِكْفِ

يَكْفِي

كَفَى

যথেষ্ট হওয়া

هِدَايَةٌ

اِهْدِ

يَهْدِي

هَدَى

পথ দেখানো

عَنيٌ

اِعْنِ

يَعْنِي

عَنَى

বোঝানো

خَشْيَّةٌ

اِخْشَ

يَخْشَى

خَشِيَ

ভয় করা

رِضْوَانٌ

اِرْضَ

يَرْضَى

رَضِيَ

সন্তুষ্ট হওয়া

نِسْيَانٌ

اِنْسَ

يَنْسَى

نَسِيَ

ভুলে যাওয়া

بَقَاءٌ

اِبْقَ

يَبْقَى

بَقِيَ

স্থায়ী হওয়া

لِقَاءٌ

اِلْقَ

يَلْقَى

لَقِيَ

মিলিত হওয়া

 

কুরানীয় উদাহরণঃ

মূসা বললেনঃ হে হারুন, তুমি যখন তাদেরকে পথ ভ্রষ্ট হতে দেখলে, তখন তোমাকে কিসে নিবৃত্ত করল ?

قَالَ يَا هَارُونُ مَا مَنَعَكَ إِذْ رَأَيْتَهُمْ ضَلُّوا

আপনি কি দেখেছেন তাকে, যে বিচারদিবসকে মিথ্যা বলে?

أَرَأَيْتَ الَّذِي يُكَذِّبُ بِالدِّينِ

নিশ্চয় আল্লাহ অবিবেচকদেরকে পথ দেখান না।

إِنَّ اللَّهَ لَا يَهْدِي الْقَوْمَ الظَّالِمِينَ

সে বললঃ হে আমার পালনকর্তা! আমি আমার সম্প্রদায়কে দিবারাত্রি দাওয়াত দিয়েছি;

قَالَ رَبِّ إِنِّي دَعَوْتُ قَوْمِي لَيْلًا وَنَهَارًا

তারপর আমি তাতেও তোমাদেরকে ক্ষমা করে দিয়েছি, যাতে তোমরা কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে নাও।

ثُمَّ عَفَوْنَا عَنكُم مِّن بَعْدِ ذَٰلِكَ لَعَلَّكُمْ تَشْكُرُونَ

যখন তারা মুসলমানদের সাথে মিলিত হয়, তখন বলেঃ আমরা মুসলমান হয়েছি। আর যখন পরস্পরের সাথে নিভৃতে অবস্থান করে, তখন বলে, পালনকর্তা তোমাদের জন্যে যা প্রকাশ করেছেন, তা কি তাদের কাছে বলে দিচ্ছ?

وَإِذَا لَقُوا الَّذِينَ آمَنُوا قَالُوا آمَنَّا وَإِذَا خَلَا بَعْضُهُمْ إِلَىٰ بَعْضٍ قَالُوا أَتُحَدِّثُونَهُم بِمَا فَتَحَ اللَّهُ عَلَيْكُمْ

তারা বলল, আমরা শুনেছি আর অমান্য করেছি। কুফরের কারণে তাদের অন্তরে গোবৎসপ্রীতি পান করানো হয়েছিল।

قَالُوا سَمِعْنَا وَعَصَيْنَا وَأُشْرِبُوا فِي قُلُوبِهِمُ الْعِجْلَ بِكُفْرِهِمْ

যদি আপনি আহলে কিতাবদের কাছে সমুদয় নিদর্শন উপস্থাপন করেন, তবুও তারা আপনার কেবলা মেনে নেবে না এবং আপনিও তাদের কেবলা মানেন না।

وَلَئِنْ أَتَيْتَ الَّذِينَ أُوتُوا الْكِتَابَ بِكُلِّ آيَةٍ مَّا تَبِعُوا قِبْلَتَكَ ۚ

বিদ্যুতালোকে যখন সামান্য আলোকিত হয়, তখন কিছুটা পথ চলে। আবার যখন অন্ধকার হয়ে যায়, তখন ঠাঁয় দাঁড়িয়ে থাকে।

كُلَّمَا أَضَاءَ لَهُم مَّشَوْا فِيهِ وَإِذَا أَظْلَمَ عَلَيْهِمْ قَامُوا ۚ

পক্ষান্তরে যে ব্যক্তি তার পালনকর্তার সামনে দন্ডায়মান হওয়াকে ভয় করেছে এবং খেয়াল-খুশী থেকে নিজেকে নিবৃত্ত রেখেছে,

وَأَمَّا مَنْ خَافَ مَقَامَ رَبِّهِ وَنَهَى النَّفْسَ عَنِ الْهَوَىٰ

ফেরাউনের নিকট যাও, সে দারুণ উদ্ধত হয়ে গেছে।

اذْهَبْ إِلَىٰ فِرْعَوْنَ إِنَّهُ طَغَىٰ

তারা বলল, আমরা আমাদের জন্তুদেরকে পানি পান করাতে পারি না, যে পর্যন্ত রাখালরা সরে না যায়।

قَالَتَا لَا نَسْقِي حَتَّىٰ يُصْدِرَ الرِّعَاءُ

যখন তিনি কোন কার্য সম্পাদনের সিন্ধান্ত নেন, তখন সেটিকে একথাই বলেন, ‘হয়ে যাওতৎক্ষণাৎ তা হয়ে যায়।

وَإِذَا قَضَىٰ أَمْرًا فَإِنَّمَا يَقُولُ لَهُ كُن فَيَكُونُ

আপনি বলুন, আমি আমার প্রতিপালকের অবাধ্য হতে ভয় পাই কেননা, আমি একটি মহাদিবসের শাস্তিকে ভয় করি।

قُلْ إِنِّي أَخَافُ إِنْ عَصَيْتُ رَبِّي عَذَابَ يَوْمٍ عَظِيمٍ

অতঃপর যখন তাঁরা দুই সুমুদ্রের সঙ্গমস্থলে পৌছালেন, তখন তাঁরা নিজেদের মাছের কথা ভুলে গেলেন।

فَلَمَّا بَلَغَا مَجْمَعَ بَيْنِهِمَا نَسِيَا حُوتَهُمَا

তাদের পালনকর্তার কাছে রয়েছে তাদের প্রতিদান চিরকাল বসবাসের জান্নাত, যার তলদেশে নির্ঝরিণী প্রবাহিত। তারা সেখানে থাকবে অনন্তকাল। আল্লাহ তাদের প্রতি সন্তুষ্ট এবং তারা আল্লাহর প্রতি সন্তুষ্ট। এটা তার জন্যে, যে তার পালনকর্তাকে ভয় কর।

جَزَاؤُهُمْ عِندَ رَبِّهِمْ جَنَّاتُ عَدْنٍ تَجْرِي مِن تَحْتِهَا الْأَنْهَارُ خَالِدِينَ فِيهَا أَبَدًا ۖ رَّضِيَ اللَّهُ عَنْهُمْ وَرَضُوا عَنْهُ ۚ ذَٰلِكَ لِمَنْ خَشِيَ رَبَّهُ

যদি আপনি সত্যবাদী হন, তবে আমাদের কাছে ফেরেশতাদেরকে আনেন না কেন?

لَّوْ مَا تَأْتِينَا بِالْمَلَائِكَةِ إِن كُنتَ مِنَ الصَّادِقِينَ

সত্বরই সে প্রবেশ করবে লেলিহান অগ্নিতে

سَيَصْلَىٰ نَارًا ذَاتَ لَهَبٍ

অর্থাৎ আল্লাহর একজন রসূল, যিনি আবৃত্তি করতেন পবিত্র সহীফা,

رَسُولٌ مِّنَ اللَّهِ يَتْلُو صُحُفًا مُّطَهَّرَةً

এমতাবস্থায় যে, সে ভয় করে,

وَهُوَ يَخْشَىٰ

এবং দর্শকদের জন্যে জাহান্নাম প্রকাশ করা হবে,

وَبُرِّزَتِ الْجَحِيمُ لِمَن يَرَىٰ

শরীকদের অনেকেই একে অপরের প্রতি জুলুম করে থাকে।

وَإِنَّ كَثِيرًا مِّنَ الْخُلَطَاءِ لَيَبْغِي بَعْضُهُمْ عَلَىٰ بَعْضٍ