الْمُضَارِعُ বর্তমান ও ভবিষ্যৎ কালের ক্রিয়া

 

 

তিন অক্ষর বিশিষ্ট ক্রিয়ামূল فَعَلَ ,فَعِلَ، فَعُلَ  এর  الْمُضَارِعُ এর সাধারণ রূيَفْعَلُ ، يَفْعِلُ  يَفْعُلُযেমনঃ অতীত কালের ক্রিয়া  ذَهَبَ এর বর্তমান কালের ক্রিয়ার রূপ হলো   يَذْهَبُআমরা লক্ষ্য করি,

 

  • শুরুতেই  الْمُضَارِعُ এর নির্দেশক একটি অতিরিক্ত বর্ণيَ  এসেছে,   
  • ف   কালিমায় সুকুন হয়েছে,  ع কালিমায় যবর এসেছে এবং ل  কালিমায় পেশ এসেছে।

 

তবে ع কালিমাযের বা পেশও আসতে পারে।  ع কালিমার হরকত পরিবর্তনের উপর ভিত্তি করে ক্রিয়াগুলোকে মোট ৬ টি গ্রুপে ভাগ করা হয় যাকে ব্যাকরনের পরিভাষায়বাব” বলা হয়।

 

ع কালিমার হরকত পরিবর্তন

المُضَارِعُ

الْمَاضِي

বাবের নাম

দম্মা >> ফাতহা

يَنْصُرُ

نَصَرَ

বাব- نَصَرَ

 কাছরা >> ফাতহা

يَضْرِبُ

ضَرَبَ

বাব- ضَرَبَ

ফাতহাতানী

يَفْتَحُ

فَتَحَ

বাব- فَتَحَ

দম্মা  >> দম্মা

يَكْرُمُ

كَرُمَ

বাব- كَرُمَ

ফাতহা  >>কাছরা 

يَسْمَعُ

سَمِعَ

বাব- سَمِعَ

কাছরাতানী

يَحْسِبُ

حَسِبَ

বাব- حَسِبَ

 

নিচে আমরা বিভিন্ন বাবের অন্তর্ভুক্ত ক্রিয়াপদের উদাহরণ দেখি। চার্টে ক্রিয়াপদের সাথে أَمْرٌ, اَلْمَصْدَرُ  ও اِسْمُ الْفَاعِلِ উল্লেখ করা হলো।  أَمْرٌ হলো আদেশ। যেমনঃ  عَبَدَ এই ক্রিয়ার আদেশ  اُعْبُدْ অর্থাৎ তুমি ইবাদত করো। এ সম্পর্কে পরবর্তী অধ্যায়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

 

نَصَرَ - يَنْصُرُ (ফাতহা - দম্মা)

اِسْمُ الْفَاعِلِ

الْمَصْدَرُ

أَمْرٌ

الْمُضَارِعُ

الْمَاضِي

ক্রিয়া

نَاقِلٌ

نَقْلٌ

اُنْقُلْ

يَنْقُلُ

نَقَلَ

 পরিবর্তন করা

عَابِدٌ

عِبَادَةٌ

اُعْبُدْ

يَعْبُدُ

عَبَدَ

 দাসত্ব করা

خَالِقٌ

خَلْقٌ

اُخْلُقْ

يَخْلُقُ

خَلَقَ

সৃষ্টি করা

قَانِتٌ

قَنْتٌ

اُقْنُتْ

يَقْنُتُ

قَنَتَ

বিনয়ী হওয়া

دَارِسٌ

دَرْسٌ

اُدْرُسْ

يَدْرُسُ

دَرَسَ

অধ্যয়ন করা

مَاكِثٌ

مَكْثٌ

اُمْكُثْ

يَمْكُثُ

مَكَثَ

অবস্থান করা

بَالِغٌ

بُلُوغٌ

اُبْلُغْ

يَبْلُغُ

بَلَغَ

পৌছে দেয়া

آخِذٌ

أَخْذٌ

خُذْ

يَأْخُذُ

أَخَذَ

ধরা 

آمِرٌ

أَمْرٌ

مُرْ

يَأْمُرُ

أَمَرَ

আদেশ করা

سَاتِرٌ

سَتْرٌ

اُسْتُرْ

يَسْتُرُ

سَتَرَ

লুকানো

حَارِثٌ

حَرْثٌ

اُحْرُثْ

يَحْرُثُ

حَرَثَ

চাষাবাদ করা

طَالِبٌ

طَلْبٌ

اُطْلُبْ

يَطْلُبُ

طَلَبَ

খুঁজা

دَاخِلٌ

دُخُولٌ

اُدْخُلْ

يَدْخُلُ

دَخَلَ

প্রবেশ করা

قَاتِلٌ

قَتْلٌ

اُقْتُلْ

يَقْتُلُ

قَتَلَ

হত্যা করা

فَاسِدٌ

فَسْدٌ

اُفْسُدْ

يَفْسُدُ

فَسَدَ

বিশৃঙ্খলা করা

حَاكِمٌ

حُكْمٌ

اُحْكُمْ

يَحْكُمُ

حَكَمَ

বিচার করা

قَاعِدٌ

قَعْدٌ

اُقْعُدْ

يَقْعُدُ

قَعَدَ

বসা

تَارِكٌ

تَرْكٌ 

اُتْرُكْ

يَتْرُكُ

تَرَكَ

ছেড়ে দিল

نَاقِضٌ

نَقْضٌ

اُنْقُضْ

يَنْقُضُ

نَقَضَ

সে শর্ত ভাঙ্গল

نَاظِرٌ

نَظْرٌ

اُنْظُرْ

يَنْظُرُ

نَظَرَ

সে লক্ষ্য করল

شَاكِرٌ

شَكْرٌ

اُشْكُرْ

يَشْكُرُ

شَكَرَ

সে কৃতজ্ঞ হল

سَاكِتٌ

سَكْتٌ

اُسْكُتْ

يَسْكُتُ

سَكَتَ

সে নীরব হল

 

ضَرَبَ - يَضْرِبُ (ফাতহা -কাছরা)

اِسْمُ الْفَاعِلِ

الْمَصْدَرُ

أَمْرٌ

الْمُضَارِعُ

الْمَاضِي

ক্রিয়া

غَاسِلٌ

غَسْلٌ

اِغْسِلْ

يَغْسِلُ

غسَلَ

ধৌত করা

غَالِبٌ

غَلْبٌ

اِغْلِبْ

يَغْلِبُ

غَلَبَ

জয় করা

ظَالِمٌ

ظُلْمٌ

اِظْلِمْ

يَظْلِمُ

ظَلَمَ

অত্যাচার করা

فَاصِلٌ

فَصْلٌ

اِفْصِلْ

يَفْصِلُ

فَصَلَ

আলাদা করা

جَالِسٌ

جَلْسٌ

اِجْلِسْ

يَجْلِسُ

جَلَسَ

বসা

خَاتِمٌ

خَتْمٌ

اِخْتِمْ

يَخْتِمُ

خَتَمَ

শেষ করা

عَارِفٌ

مَعْرِفَةٌ

اِعْرِفْ

يَعْرِفُ

عَرَفَ

জানা

عَارِضٌ

عَرْضٌ

اِعْرِضْ

يَعْرِضُ

عَرَضَ

উপস্থিত করা

غَافِرٌ

مَغْفِرَةٌ

اِغْفِرْ

يَغْفِرُ

غَفَرَ

ক্ষমা করা

كَاذِبٌ

كَذِبٌ

اِكْذِبْ

يَكْذِبُ

كَذَبَ

মিথ্যা বলা

كَاسِبٌ

كَسْبٌ

اِكْسِبْ

يَكْسِبُ

كَسَبَ

উপার্জন করা

كَاسِرٌ

كَسْرٌ

اِكْسِرْ

يَكْسِرُ

كَسَرَ

ভাঙ্গা

صَابِرٌ

صَبْرٌ

اِصْبِرْ

يَصْبِرُ

صَبَرَ

সহিষ্ণু হওয়া

رَاجِعٌ

رَجْعٌ

اِرْجِعْ

يَرْجِعُ

رَجَعَ

ফিরে আসা

كَاشِفٌ

كَشْفٌ

اِكْشِفْ

يَكْشِفُ

كَشَفَ

খুলা

سَارِقٌ

سَرْقٌ

اِسْرِقْ

يَسْرِقُ

سَرَقَ

চুরি করা

حَامِلٌ

حَمْلٌ

اِحْمِلْ

يَحْمِلُ

حَمَلَ

বহন করা

هَالِكٌ

هَلْكٌ

اِهْلِكْ

يَهْلِكُ

هَلَكَ

ধ্বংস হওয়া

نَازِلٌ

نَزْلٌ

اِنْزِلْ

يَنْزِلُ

نَزَلَ

অবতীর্ন হওয়া

 

فَتَحَ - يَفْتَحُ (ফাতহাতানী)

اِسْمُ الْفَاعِلِ

الْمَصْدَرُ

أَمْرٌ

الْمُضَارِعُ

الْمَاضِي

ক্রিয়া

ظَاهِرٌ

ظَهْرٌ

اِظْهَرْ

يَظْهَرُ

ظَهَرَ

প্রদর্শণ করা

مَانِعٌ

مَنْعٌ

اِمْنَعْ

يَمْنَعُ

مَنَعَ

বাধা দেওয়া

جَارِحٌ

جَرْحٌ

اِجْرَحْ

يَجْرَحُ

جَرَحَ

আঘাত করা

نَاجِحٌ

نَجْحٌ

اِنْجَحْ

يَنْجَحُ

نَجَحَ

পাস করা

لَاعِنٌ

لَعْنٌ

اِلْعَنْ

يَلْعَنُ

لَعَنَ

অভিশাপ দেওয়া

زَارِعٌ

زَرْعٌ

اِزْرَعْ

يَزْرَعُ

زَرَعَ

চাষাবাদ করা

قَاطِعٌ

قَطْعٌ

اِقْطَعْ

يَقْطَعُ

قَطَعَ

কাটা

مَانِحٌ

مَنْحٌ

اِمْنَحْ

يَمْنَحُ

مَنَحَ

দান করা

فَاتِحٌ

فَتْحٌ

اِفْتَحْ

يَفْتَحُ

فَتَحَ

খুলা

بَاعِثٌ

بَعْثٌ

اِبْعَثْ

يَبْعَثُ

بَعَثَ

পাঠানো

مَادِحٌ

مَدْحٌ

اِمْدَحْ

يَمْدَحُ

مَدَحَ

প্রশংসা করা

رَافِعٌ

رَفْعٌ

اِرْفَعْ

يَرْفَعُ

رَفَعَ

উঠানো

جَامِعٌ

جَمْعٌ

اِجْمَعْ

يَجْمَعُ

جَمَعَ

জমা করা

جَاعِلٌ

جَعْلٌ

اِجْعَلْ

يَجْعَلُ

جَعَلَ

বানানো

سَاحِرٌ

سِحْرٌ

اِسْحَرْ

يَسْحَرُ

سَحَرَ

যাদু করা

صَالِحٌ

مَصْلَحَةٌ

اِصْلَحْ

يَصْلَحُ

صَلَحَ

সংশোধন করা

نَافِعٌ

نَفْعٌ

اِنْفَعْ

يَنْفَعُ

نَفَعَ

লাভ করা

سَائِلٌ

سُؤَالٌ  

سَلْ

يَسْأَلُ

سَأَلَ

জিজ্ঞাসা করা

قَارِئٌ

قِرَاءَةٌ

اِقْرَأْ

يَقْرَأُ

قَرَأَ

পাঠ করা

بَادِئٌ

بَدْأٌ

اِبْدَأْ

يَبْدَأُ

بَدَأَ

 উদ্ভাবন করা

 

كَرُمَ - يَكْرُمُ (দম্মা-দম্মা)

اِسْمُ الْفَاعِلِ

الْمَصْدَرُ

أَمْرٌ

الْمُضَارِعُ

الْمَاضِي

ক্রিয়া

قَرِيْبٌ

قَرْبٌ

اُقْرُبْ

يَقْرُبُ

قَرُبَ

নিকটবর্তী হওয়া

بَعِيْدٌ

بَعْدٌ

اُعْبُدْ

يَبْعُدُ

بَعُدَ

দূরে যাওয়া

كَثِيْرٌ

كَثْرٌ

اُكْثُرْ

يَكْثُرُ

كَثُرَ

বৃদ্ধি হওয়া

حَسِيْنٌ

حَسْنٌ

اُحْسُنْ

يَحْسُنُ

حَسُنَ 

সুন্দর হওয়া

قَصِيْرٌ

قَصْرٌ

اُقْصُرْ

يَقْصُرُ

قَصُرَ

খাট হওয়া

كَبِيْرٌ

كَبْرٌ

اُكْبُرْ

يَكْبُرُ

كَبُرَ

বড় হওয়া

ثَقِيْلٌ

ثَقْلٌ

اُثْقُلْ

يَثْقُلُ

ثَقُلَ

ভারী হওয়া

بَصِيْرٌ

بَصْرٌ

اُصْبُرْ

يَبْصُرُ

بَصُرَ

দূরদর্শী হওয়া

صَعِيْبٌ

صَعْبٌ

اُصْعُبْ

يَصْعُبُ

صَعُبَ

কঠোর হওয়া

عَظِيْمٌ

عَظْمٌ

اُعْظُمْ

يَعْظُمُ

عَظُمَ

বড় হওয়া

طَهِيْرٌ

طَهْرٌ

اٌطْهُرْ

يَطْهُرُ

طَهُرَ

খাঁটি হওয়া

لَطِيْفٌ

لَطْفٌ

اُلْطُفْ

يَلْطُفُ

لَطُفَ

নিখুঁত হওয়া

 

 ***এই বাবের ইসম ফায়িলগুলো সাধারণত فَعِيلٌ   গঠনে হয়। যেমন  كَرِيمٌ ।  এ গঠনটি اِسْمُ الْفَاعِلِاِسْمُ الْمَفْعُوْلِ  দুই অর্থেই ব্যবহারিত হয়।

 

 سَمِعَ – يَسْمَعُ (কাছরা-ফাতহা)

اِسْمُ الْفَاعِلِ

الْمَصْدَرُ

أَمْرٌ

الْمُضَارِعُ

الْمَاضِي

ক্রিয়া

سَامِعٌ

سَمَاعَةٌ

اِسْمَعْ

يَسْمَعُ

سَمِعَ 

শুনা

عَالِمٌ

عِلْمٌ

اِعْلَمْ

يَعْلَمُ

عَلِمَ

জানা

حَافِظٌ

حِفْظٌ

اِحْفَظْ

يَحْفَظُ

حَفِظَ

মুখস্ত করা

جَاهِلٌ

جَهْلٌ

اِجْهَلْ

يَجْهَلُ

جَهِلَ

মূর্খ হওয়া

حَامِدٌ

حَمْدٌ

اِحْمَدْ

يَحْمَدُ

حَمِدَ

প্রশংসা করা

فَاهِمٌ

فَهْمٌ

اِفْهَمْ

يَفْهَمُ

فَهِمَ

বুঝা

غَاضِبٌ

غَضْبٌ

اِغْضَبْ

يَغْضَبُ

غَضِبَ

রাগান্বিত হওয়া

شَاهِدٌ

شَهُودٌ

اِشْهَدْ

يَشْهَدُ

شَهِدَ

সাক্ষ্য দেওয়া

آمِنٌ

أَمْنٌ

اِيْمَنْ

يَأْمَنُ

أَمِنَ

নিরাপদ হওয়া

فَارِحٌ

فَرْحٌ

اِفْرَحْ

يَفْرَحُ

فَرِحَ

খুশি হওয়া

حَازِنٌ

حُزْنٌ

اِحْزَنْ

يَحْزَنُ

حَزِنَ

চিন্তিত হওয়া

عَاطِشٌ

عَطْشٌ

اِعْطَشْ

يَعْطَشُ

عَطِشَ

পিপাসার্ত হওয়া

جَاهِرٌ

جَهْرٌ

اِجْهَرْ

يَجْهَرُ

جَهِرَ

প্রকাশ হওয়া

سَالِمٌ

سَلْمٌ

اِسْلَمْ

يَسْلَمُ

سَلِمَ

নিরাপদ হওয়া

رَاكِبٌ

رَكْبٌ

اِرْكَبْ

يَرْكَبُ

رَكِبَ

চড়া

شَارِبٌ

شَرْبٌ

اِشْرَبْ

يَشْرَبُ

شَرِبَ

পান করা

ضَاحِكٌ

ضَحْكٌ

اِضْحَكْ

يَضْحَكُ

ضَحِكَ

হাসা

كَارِهٌ

كُرْهٌ

اِكْرَهْ

يَكْرَهُ

كَرِهَ

ঘৃণা করা

 

حَسِبَ - يَحْسِبُ (কাছরাতানী)

اِسْمُ الْفَاعِلِ

الْمَصْدَرُ

أَمْرٌ

الْمُضَارِعُ

الْمَاضِي

ক্রিয়া

حَاسِبٌ

حَسْبٌ

اِحْسِبْ

يَحْسِبُ

حَسِبَ

মনে করা

وَارِثٌ

وِرْثٌ

رِثْ

يَرِثُ

وَرِثَ

ওয়ারিশ হওয়া

نَاعِمٌ

نَعْمٌ

اِنْعِمْ

يَنْعِمُ

نَعِمَ

স্বছন্দ হওয়া

 

فَاعِلٌ   এর সাথে   الفِعْلُ الْمُضَارِعُএর পরিবর্তন

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

يَذْهَبُوْنَ

يَذْهَبَانِ

يَذْهَبُ

পুং

তারা সকলে যায়/যাবে

তারা দুজন যায়/যাবে

সে যায়/যাবে

 

يَذْهَبْنَ

تَذْهَبَانِ

تَذْهَبُ

স্ত্রী

তারা সকলে যায়/যাবে

তারা দুজন যায়/যাবে

সে যায়/যাবে

 

تَذْهَبُوْنَ

تَذْهَبَانِ

تَذْهَبُ

পুং

তোমরা সকলে যাও/যাবে

তোমরা দুজন যাও/যাবে

তুমি যাও/যাবে

 

تذْهَبْنَ

تَذْهَبَانِ

تَذْهَبِيْنَ

স্ত্রী

তোমরা সকলে যাও/যাবে

তোমরা দুজন যাও/যাবে

তুমি যাও/যাবে

 

نَذْهَبُ

 

أَذْهَبُ

উভয়

আমরা যাই/যাবো

 

আমি যাই/যাবো

 

 

মনে রাখার জন্যঃ

  • দ্বিবচনে انِ যোগ يَذْهَبَ + انِ = يَذْهَبَانِ 
  • বহু বচনে وْنَ যোগ يَذْهَبُ + وْنَ = يَذْهَبُوْنَ 
  • মেয়ে আসলে ت দিয়ে শুরু تَذْهَبُ আবার দ্বিবচনে انِ যোগ  تَذْهَبَ + انِ = تَذْهَبَانِ 
  • সব মেয়ের সময় ব্যতিক্রম  হল ل কালিমায় সাকিন   يَذْهَبْ   আর সাথে نَ যোগ,  يَذْهَبْنَ
  • أَنْتَ= هِيَ  অর্থাৎ তুমি একটা ছেলের জন্য সে একজন মেয়ের ন্যায় تَذْهَبُ
  • আবার দ্বিবচনে انِ যোগ تَذْهَبَ + انِ = تَذْهَبَانِ 
  • বহু বচনে وْنَ যোগ تَذْهَبُ + وْنَ = تَذْهَبُوْنَ 
  • ঈনা (يْنَ) একটা মেয়ের নাম تَذْهَبِ + يْنَ = تَذْهَبِيْنَ

 

অতীত কালের ক্রিয়া মাবনী কিন্তু বর্তমান কালের ক্রিয়ার মারফু, মানসুব আর মাজ্জুম (শেষ বর্ণে যজম) অবস্থা আছে। উল্লেখ্য যে ক্রিয়া কখনও মাজরুর হয় না। প্রতিটি ক্রিয়ার সাথে চারটি বিষয় থাকে যা মনে রাখা খুবই গুরুত্বপুর্ন তিনটা গ্রুপে এদের শ্রেনীভুক্ত করলে মনে রাখতে সুবিধা হয়।

গ্রুপ-১ কর্তা উহ্য বা مُسْتَتِرٌ

জ্ঞাতব্য বিষয়

অর্থ

الْمُضَارِعُ

الْمُضَارِعُ এর চিহ্নঃ 

نَ، أَ، تَ، يَ

সে যায়

يَذْهَبُ

ক্রিয়ার মূলঃ

ذهب

সে যায় (স্ত্রী)

تَذْهَبُ

কর্তাঃ

مُسْتَتِرٌ

তুমি যাও

تَذْهَبُ

মারফুর আলামতঃ

ُ

আমি যাই

أَذْهَبُ

 

 

আমরা যাই

نَذْهَبُ

 

গ্রুপ-২  ن আসে ن যায়

জ্ঞাতব্য বিষয়

অর্থ

ن যায়

ن আসে

الْمُضَارِعُ এর চিহ্নঃ 

تَ، يَ

তারা দুইজন যায়

يَذْهَبَا

يَذْهَبَانِ

ক্রিয়ার মূলঃ

ذهب

তারা সকলে যায়

يَذْهَبُوْا

يَذْهَبُوْنَ

কর্তাঃ

ا  وْ  ي

তারা দুইজন (স্ত্রী) যায়

তোমরা দুইজন যাও

তোমরা দুইজন (স্ত্রী) যাও

تَذْهَبَا

تَذْهَبَانِ

মারফু আলামতঃ

   ن আসে

তোমরা সকলে যাও

تَذْهَبُوْا

تَذْهَبُوْنَ

মানসুব ও মাজ্জুমের আলামতঃ

ن যায়

তুমি (স্ত্রী) যাও

تَذْهَبِيْ

تَذْهَبِيْنَ

 

গ্রুপ-   هُنَّ  تُنَّ মাবনি

জ্ঞাতব্য বিষয়

অর্থ

الْمُضَارِعُ

الْمُضَارِعُ এর চিহ্নঃ 

تَ، يَ

তারা  (স্ত্রী)যায়

يَذْهَبْنَ

ক্রিয়ার মূলঃ

ذهب

তোমরা (স্ত্রী) যাও

تَذْهَبْنَ

কর্তাঃ

ن

 

 

বিভক্তিঃ

মাবনী

 

 

 

এবার তাহলে আমরা কয়েকটি ক্রিয়ার ১৪টি রূপ দেখি,

   الفِعْلُ الْمُضَارِعُ বর্তমান কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

يَنْصُرُوْنَ

يَنْصُرَانِ

يَنْصُرُ

পুং

يَنْصُرْنَ

تَنْصُرَانِ

تَنْصُرُ

স্ত্রী

تَنْصُرُوْنَ

تَنْصُرَانِ

تَنْصُرُ

পুং

تَنْصُرْنَ

تَنْصُرَانِ

تَنْصُرِينَ

স্ত্রী

نَنْصُرُ

 

أَنْصُرُ

উভয়

   الفِعْلُ الْمُضَارِعُ বর্তমান কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

يَسْمَعُوْنَ

يَسْمَعَانِ

يَسْمَعُ

পুং

يَسْمَعْنَ

تَسْمَعَانِ

تَسْمَعُ

স্ত্রী

تَسْمَعُوْنَ

تَسْمَعَانِ

تَسْمَعُ

পুং

تَسْمَعْنَ

تَسْمَعَانِ

تَسْمَعِيْنَ

স্ত্রী

نَسْمَعُ

 

أَسْمَعُ

উভয়

 

   الفِعْلُ الْمُضَارِعُ বর্তমান কালের ক্রিয়া

বহুবচন

দ্বিবচন

একবচন

 

يَحْسِبُوْنَ

يَحْسِبَانِ

يَحْسِبُ

পুং

يَحْسِبْنَ

تَحْسِبَانِ

تَحْسِبُ

স্ত্রী

تَحْسِبُوْنَ

تَحْسِبَانِ

تَحْسِبُ

পুং

تَحْسِبْنَ

تَحْسِبَانِ

تَحْسِبِيْنَ

স্ত্রী

نَحْسِبُ

 

أَحْسِبُ

উভয়

 

মুদারী সাধারনভাবে মারফু তবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে তা মানসুব ও মাজ্জুম হয়। ক্ষেত্রগুলো আমরা ধীরে ধীরে দেখব। এখানে আমরা কেবল এর তিনটা রূপ একসাথে দেখি,

মাজ্জুম

মানসুব

মারফু

অর্থ

يَذْهَبْ

يَذْهَبَ

يَذْهَبُ

সে যায়/যাবে

يَذْهَبَا

يَذْهَبَا

يَذْهَبَانِ

তারা দুজন যায়/যাবে

يَذْهَبُوْا

يَذْهَبُوْا

يَذْهَبُوْنَ

তারা সকলে যায়/যাবে

تَذْهَبْ

تَذْهَبَ

تَذْهَبُ

সে (স্ত্রী) যায়/যাবে

تَذْهَبَا

تَذْهَبَا

تَذْهَبَانِ

তারা দুজন (স্ত্রী) যায়/যাবে

يَذْهَبْنَ

يَذْهَبْنَ

يَذْهَبْنَ

তারা সকলে (স্ত্রী) যায়/যাবে

تَذْهَبْ

تَذْهَبَ

تَذْهَبُ

তুমি যাও/যাবে

تَذْهَبَا

تَذْهَبَا

تَذْهَبَانِ

তোমরা দুজন যাও/যাবে

تَذْهَبُوْا

تَذْهَبُوْا

تَذْهَبُوْنَ

তোমরা সকলে যাও/যাবে

تَذْهَبِيْ

تَذْهَبِيْ

تَذْهَبِيْنَ

তুমি (স্ত্রী)  যাও/যাবে

تَذْهَبَا

تَذْهَبَا

تَذْهَبَانِ

তোমরা দুজন (স্ত্রী)  যাও/যাবে

تَذْهَبْنَ

تَذْهَبْنَ

تَذْهَبْنَ

তোমরা সকলে(স্ত্রী) যাও/যাবে

أَذْهَبْ

أَذْهَبَ

أَذْهَبُ

আমি যাই/যাবো

نَذْهَبْ

نَذْهَبَ

نَذْهَبُ

আমরা যাই/যাবো

 

কুরানীয় উদাহরণঃ

আর আল্লাহ যা ইচ্ছা করেন, তাই করেন

وَيَفْعَلُ اللَّهُ مَا يَشَاءُ

এবং তারা অঙ্গীকার ভঙ্গ করে না

وَلَا يَنقُضُونَ الْمِيثَاقَ

তারা পরিধান করবে চিকন পুরু রেশমীর বস্ত্র

يَلْبَسُونَ مِن سُندُسٍ وَإِسْتَبْرَقٍ

তারা বলল, তুমি কি তাতে এমন কাউকে সৃষ্টি করবে যে বিশৃংখলা সৃষ্টি করবে এবং রক্ত ঝরাবে? 

قَالُوا أَتَجْعَلُ فِيهَا مَن يُفْسِدُ فِيهَا وَيَسْفِكُ الدِّمَاءَ

অথচ আমরা তোমার গুণকীর্তন করছি এবং তোমার পবিত্রতা ঘোষনা করছি

و َنَحْنُ نُسَبِّحُ بِحَمْدِكَ وَنُقَدِّسُ لَكَ ۖ

তিনি বললেন, নিঃসন্দেহে আমি জানি, যা তোমরা জান না

قَالَ إِنِّي أَعْلَمُ مَا لَا تَعْلَمُونَ

এবং আমি মোহর এঁটে দিয়েছি তাদের অন্তরসমূহের উপর

وَنَطْبَعُ عَلَىٰ قُلُوبِهِمْ

সুতরাং তারা শুনতে পায় না

فَهُمْ لَا يَسْمَعُونَ

কখনও নয়,  তোমরা সত্ত্বরই জেনে নেবে

كَلَّا سَوْفَ تَعْلَمُونَ

 


Asadullah

আস-সালামু আলাইকুম৷শায়খ!"نعبد الله"এর অর্থ আমরা আল্লাহর দাসত্ব করি৷কেন হল?এখানে অধিকৃত ও অধিকারির "র"আসল কেন?(যেমন আল্লাহর)৷হওয়ার দরকার ছিল "আল্লাহকে" গ্রামার অনুযায়ী৷

reply

Admin

ওয়া আলাইকুমুস সালাম। এখানে আল্লাহা মাফুলুন বিহি। কর্ম। ক্রিয়ার পর কর্ম এসেছে। নাবুদু ক্রিয়া। ইসম নয়।

reply

Asadullah

শায়খ! এটা তো বুঝেছি যে,الله এখানে কর্ম৷আমি বলছিলাম যেহেতু কর্ম তাহলে অর্থ হওয়া দরকার "আমরা আল্লাহকে ইবাদাত করি"কিন্তু তা নাহয়" আমরা আল্লাহর ইবাদাত করি"মুদাফ-মুদাফইলায়হি এর অর্থ হলো কেন?

reply

Admin

বিষয়টা হল বাংলা অনুবাদের ক্ষেত্রে আপনাকে একদম লিটারেলি বোঝাতে হবে না। আল্লাহর ইবাদত করি এখানে বাংলায় এটা কর্মবাচক। র এর কারনে সম্বন্ধ বোঝায় না।

reply