সুরা বাকারাহ (১৬-১৮)

তাদের উদাহরণ সে ব্যক্তির মত, যে লোক কোথাও আগুন জ্বালালো (২-১৭)

مَثَلُهُمْ كَمَثَلِ الَّذِي اسْتَوْقَدَ نَارًا

আগুন জ্বালানো

اِسْتَوْقَدَ-يَسْتَوْقِدُ

তারা যখনই যুদ্ধের আগুন প্রজ্জ্বলিত করে :৬৪

كُلَّمَا أَوْقَدُوا نَارًا لِّلْحَرْبِ

আগুন জ্বালানো

أَوْقَدَ-يُوقِدُ

তোমরা যে অগ্নি প্রজ্জ্বলিত কর, সে সম্পর্কে ভেবে দেখেছ কি?

 

৫৬:৭১

أَفَرَأَيْتُمُ النَّارَ الَّتِي تُورُونَ

আগুন জ্বালানো

أَوْرَى- يُورِي- تُوْرُونَ

যখন জাহান্নামের অগ্নি প্রজ্বলিত করা হবে ৮১:১২

وَإِذَا الْجَحِيمُ سُعِّرَتْ

আগুন ধরিয়ে দেয়া

سَعَّرَ- يُسَعِّرُ

যখন সমুদ্রকে উত্তাল করে তোলা হবে ৮১:

وَإِذَا الْبِحَارُ سُجِّرَتْ

উপচাইয়া ত্তঠা

سَجَّرَ-يسَجِّرُ

অতএব, আমি তোমাদেরকে প্রজ্বলিত অগ্নি সম্পর্কে সতর্ক করে দিয়েছি। ৯২:১৪

فَأَنذَرْتُكُمْ نَارًا تَلَظَّىٰ

দাউ দাউ করে জ্বলা

تَلَظَّى-يَتَلَظَّى

আল্লাহ তা নির্বাপিত করে দেন।

:৬৪

 

أَطْفَأَهَا اللَّهُ

নিভিয়ে দেয়া, নিঃশেষ হয়ে যাওয়া

أَطْفَأَ-يُطْفِئُ

যখনই নির্বাপিত হল ১৭:৯৭

كُلَّمَا خَبَتْ

নিভে যাওয়া,

خَبَا-يَخْبُو

শেষ পর্যন্ত আমি তাদেরকে করে দিলাম যেন কর্তিত শস্য নির্বাপিত অগ্নি। ২১:১৫

حَتَّىٰ جَعَلْنَاهُمْ حَصِيدًا خَامِدِينَ

নির্বাপিত, স্তিমিত

خَامِدٌ ج خَامِدُونَ

 

 

আগুন

نَارٌ

কখনই নয়। নিশ্চয় এটা লেলিহান অগ্নি। ৭০:১৫

كَلَّا ۖ إِنَّهَا لَظَىٰ

লেলিহান শিখা, জ্বলন্ত আগুন,

لَظَى

যখন তার চারদিক আলোকিত হলো আল্লাহ আলোকে উঠিয়ে নিলেন

فَلَمَّا أَضَاءَتْ مَا حَوْلَهُ ذَهَبَ اللَّهُ بِنُورِهِمْ

আলোকিত করা

أَضَاءَ- يُضِيءُ

পৃথিবী তার পালনকর্তার নূরে উদ্ভাসিত হবে ৩৯:৬৯

وَأَشْرَقَتِ الْأَرْضُ بِنُورِ رَبِّهَا

নূরে উদ্ভাসিত হবে

أَشْرَقَ - يُشْرِقُ

শপথ প্রভাতকালের যখন তা আলোকোদ্ভাসিত হয়, ৭৪:৩৪

وَالصُّبْحِ إِذَا أَسْفَرَ

আলোকময় হওয়া

أَسْفَرَ-يُسْفِرُ

আবার যখন অন্ধকার হয়ে যায়, তখন ঠাঁয় দাঁড়িয়ে থাকে। :২০

وَإِذَا أَظْلَمَ عَلَيْهِمْ قَامُوا

অন্ধকারহওয়া, অন্ধকারকরা

أَظْلَمَ-يُظْلِمُ

তিনি এর রাত্রিকে করেছেন অন্ধকারাচ্ছন্ন এবং এর সূর্যোলোক প্রকাশ করেছেন। ৭৯:২৯

وَأَغْطَشَ لَيْلَهَا وَأَخْرَجَ ضُحَاهَا

আঁধারময় করা

أَغْطَشَ- يُغْطِشُ

অন্ধকার রাত্রির অনিষ্ট থেকে, যখন তা সমাগত হয় ১১৩:

وَمِن شَرِّ غَاسِقٍ إِذَا وَقَبَ

অন্ধকার আচ্ছন্ন করা

وَقَبَ- يَقِبُ

যখন তার চারদিক আলোকিত হলো আল্লাহ আলোকে উঠিয়ে নিলেন

فَلَمَّا أَضَاءَتْ مَا حَوْلَهُ ذَهَبَ اللَّهُ بِنُورِهِمْ

চতুর্দিক

حَوْلَ

 

 

যাওয়া

ذَهَبَ- يَذْهَبُ (ذَهَابٌ)

অতঃপর সে গৃহে গেল

৫১:২৬

فَرَاغَ إِلَىٰ أَهْلِهِ

গোপনে প্রবেশ করা, যাওয়া,

رَاغَ- يَرُوغُ

সে বললঃ আমি আমার পালনকর্তার দিকে চললাম ৩৭:৯৯

وَقَالَ إِنِّي ذَاهِبٌ إِلَىٰ رَبِّي

গমনকারী, গমনশীল

ذَاهِبٌ

যারা সম্মানিত গৃহ অভিমুখে যাচ্ছে, যারা স্বীয় পালনকর্তার অনুগ্রহ সন্তুষ্টি কামনা করে। :

آمِّينَ الْبَيْتَ الْحَرَامَ يَبْتَغُونَ فَضْلًا مِّن رَّبِّهِمْ وَرِضْوَانًا

গমনেচ্ছুক, আকাঙ্ক্ষী

آمٍّ ج آمُّونَ

যে একটি সৎকর্ম করবে, সে তার দশগুণ পাবে

:১৬০

مَن جَاءَ بِالْحَسَنَةِ فَلَهُ عَشْرُ أَمْثَالِهَا

আসা, পৌঁছা,

جَاءَ- يَجِيءُ

প্রসব বেদনা তাঁকে এক খেজুর বৃক্ষ-মূলে আশ্রয় নিতে বাধ্য করল

১৯:২৩

فَأَجَاءَهَا الْمَخَاضُ إِلَىٰ جِذْعِ النَّخْلَةِ

নিয়ে আসা, সমাগত করা

أَجَاءَ- يُجِيءُ

অথবা আল্লাহ ফেরেশতাদেরকে আমাদের সামনে নিয়ে আসবেন।

১৭:৯২

أَوْ تَأْتِيَ بِاللَّهِ وَالْمَلَائِكَةِ قَبِيلًا

আসা, নিয়ে আসা

أَتَى- يَأْتِي

এমনকি, তোমরা কবরস্থানে পৌছে যাও।  ১০২:

حَتَّىٰ زُرْتُمُ الْمَقَابِرَ

সাক্ষাৎ করা

زَارَ- يَزُورُ

যেখানে আমরা ছিলাম এবং কাফেলাকে, যাদের সাথে আমরা এসেছি। ১২:৮২

كُنَّا فِيهَا وَالْعِيرَ الَّتِي أَقْبَلْنَا فِيهَا

অগ্রসর হওয়া

أَقْبَلَ- يُقْبِلُ

আর তাদেরকে বলা হল এসো, আল্লাহর রাহে লড়াই কর ৩:১৬৭

وَقِيلَ لَهُمْ تَعَالَوْا قَاتِلُوا فِي سَبِيلِ اللَّهِ

সুমহান হওয়া, গৌরবান্বিত হওয়া, উর্ধ্বে ওঠা,

تَعَالَى- يَتَعَلَى

আপনি বলুনঃ তোমাদের সাক্ষীদেরকে আন ৬:১৫০

قُلْ هَلُمَّ شُهَدَاءَكُمُ

তুমি আসো, উপস্থিত কর

هَلُمَّ

আমি তোমাদের কাছে প্রকাশ্য প্রমাণ উপস্থিত করছি

৪৪:১৯

إِنِّي آتِيكُم بِسُلْطَانٍ مُّبِينٍ

আসন্ন, আগত, আগমনকারী

آتٍ، آتِيَةٌ

 

 

আলো

نُورٌ

অথবা আকাশের বৃষ্টির মত যাতে থাকে আঁধার :১৯

أَوْ كَصَيِّبٍ مِّنَ السَّمَاءِ فِيهِ ظُلُمَاتٌ

অন্ধকার

ظُلُمَةٌ ج ظُلُمَاتٌ

তাদের মুখমন্ডল যেন ঢেকে দেয়া হয়েছে আধাঁর রাতের টুকরো দিয়ে।

১০:২৭

كَأَنَّمَا أُغْشِيَتْ وُجُوهُهُمْ قِطَعًا مِّنَ اللَّيْلِ مُظْلِمًا

অন্ধকারাচ্ছন্ন

مُظْلِمٌ

আর তাদের মুখমন্ডলকে আবৃত করবে না মলিনতা ১০:২৬

وَلَا يَرْهَقُ وُجُوهَهُمْ قَتَرٌ

ধূলা, মলিনতা

قَتَرٌ، قَتَرَةٌ

সূর্য ঢলে পড়ার সময় থেকে রাত্রির অন্ধকার পর্যন্ত নামায কায়েম করুন

১৭:৭৮

أَقِمِ الصَّلَاةَ لِدُلُوكِ الشَّمْسِ إِلَىٰ غَسَقِ اللَّيْلِ

অন্ধকারাচ্ছন্ন হওয়া, অন্ধকার

غَسَقٌ، غَاسِقٌ

এবং তাদেরকে অন্ধকারে ছেড়ে দিলেন। ফলে, তারা কিছুই দেখতে পায় না। (২-১৭)

وَتَرَكَهُمْ فِي ظُلُمَاتٍ لَّا يُبْصِرُونَ

ত্যাগ করা, পরিত্যাগকরা, বর্জন করা

تَرَكَ- يَتْرُكُ

এবং অপবিত্রতা থেকে দূরে থাকুন।

৭৪:

وَالرُّجْزَ فَاهْجُرْ

বর্জন করা, বকাবকি করা

هَجَرَ- يَهْجُرُ (هَجْرٌ)

এবং সুদের যে সমস্ত বকেয়া আছে, তা পরিত্যাগ কর :২৭৮

وَذَرُوا مَا بَقِيَ مِنَ الرِّبَا

পরিত্যাগ করা

وَذَرَ-يَذَرُ

যে ছোট বড় কোন কিছুই বাদ দেয়নি-সবই এতে রয়েছে। ১৮:৪৯

لَا يُغَادِرُ صَغِيرَةً وَلَا كَبِيرَةً إِلَّا أَحْصَاهَا

বাদ দেওয়া

غَادَرَ- يُغَادِرُ

তবে তাদের পথ ছেড়ে দাও।

:

فَخَلُّوا سَبِيلَهُمْ

খালি করা, মুক্ত করা, পথ ছেড়ে দেয়া

خَلَّى- يُخَلِّي

আপনার পালনকর্তা আপনাকে ত্যাগ করেনি ৯৩:

مَا وَدَّعَكَ رَبُّكَ وَمَا قَلَىٰ

বিদায় করা

وَدَّعَ- يُوَدِّعُ

যখন দশ মাসের গর্ভবতী উষ্ট্রীসমূহ উপেক্ষিত হবে ৮১:

وَإِذَا الْعِشَارُ عُطِّلَتْ

উপেক্ষিত, অনুপস্থিত

عَطَّلَ- يُعَطِّلُ

আর যদি তিনি তোমাদের সাহায্য না করেন ৩:১৬০

وَإِن يَخْذُلْكُمْ

পরিত্যাগ করা, সহায়হীন করা

خَذَلَ-يَخْذُلُ

আমরা তোমার কথায় আমাদের দেব-দেবীদের বর্জন করতে পারি না

১১:৫৩

وَمَا نَحْنُ بِتَارِكِي آلِهَتِنَا عَن قَوْلِكَ

বর্জনকারী,

تَارِكٌ

 

 

দেখা, অনুধাবন করা

أَبْصَرَ-يُبْصِرُ

সে বললঃ আমি দেখলাম যা অন্যেরা দেখেনি। ২০:৯৬

قَالَ بَصُرْتُ بِمَا لَمْ يَبْصُرُوا بِهِ

দেখা, অনুধাবন করা

بَصُرَ-يَبْصُرُ

অনন্তর যখন রজনীর অন্ধকার তার উপর সমাচ্ছন্ন হল, তখন সে একটি তারকা দেখতে পেল :৭৬

فَلَمَّا جَنَّ عَلَيْهِ اللَّيْلُ رَأَىٰ كَوْكَبًا

দৃষ্টিগোচর হওয়া, প্রত্যক্ষ করা

رَأَى-يَرَى (رَأْيٌ)

তখন সে তুর পর্বতের দিক থেকে আগুন দেখতে পেল। ২৮:২৯

آنَسَ مِن جَانِبِ الطُّورِ نَارًا

দেখা

آنَسَ-يُأَنِسُ

অথচ তোমরা দেখছিলে। :৫০

وَأَنتُمْ تَنظُرُونَ

তাকানো, লক্ষ্য করা,

نَظَرَ-يَنْظُرُ (نَظْرٌ)

যখন উভয় দল পরস্পরকে দেখল

২৬:৬১

فَلَمَّا تَرَاءَى الْجَمْعَانِ

সম্মুখিন হওয়া

تَرَاءَى- يَتَرَاءَى

তারা বধির, মূক ও অন্ধ। সুতরাং তারা ফিরে আসবে না। (২-১৮)

صُمٌّ بُكْمٌ عُمْيٌ فَهُمْ لَا يَرْجِعُونَ

বধির

أَصَمٌّ ج صُمٌّ (صَمَّ-يَصُمُّ)

অতঃপর তাদেরকে বধির দৃষ্টিশক্তিহীন করেন। (৪৭:২৩)

فَأَصَمَّهُمْ وَأَعْمَىٰ أَبْصَارَهُمْ

বধির বানানো

أَصَمَّ-يُصِمُّ

অতঃপর তাকে করে দিয়েছি শ্রবণ ও দৃষ্টিশক্তিসম্পন্ন। (৭৬:২)

فَجَعَلْنَاهُ سَمِيعًا بَصِيرًا

শ্রবণশক্তিসম্পন্ন

سَمِيعٌ

 

 

বোবা

أَبْكَمُ ج بُكْمٌ

তারা বলবে, যে আল্লাহ সব কিছুকে বাকশক্তি দিয়েছেন, তিনি আমাদেরকেও বাকশক্তি দিয়েছেন।

৪১:২১

قَالُوا أَنطَقَنَا اللَّهُ الَّذِي أَنطَقَ كُلَّ شَيْءٍ

বাক শক্তি দেওয়া

أَنْطَقَ-يُنْطِقُ

 

 

অন্ধ

أَعْمَى ج عُمْيٌ

(عَمِيَ- يَعْمَى)

আর আমি সুস্থ করে তুলি জন্মান্ধকে

:৪৯

وَأُبْرِئُ الْأَكْمَهَ

অন্ধ

أَكْمَهٌ

সেদিন আমি অপরাধীদেরকে সমবেত করব নীল চক্ষু অবস্থায়।

২০:১০২

وَنَحْشُرُ الْمُجْرِمِينَ يَوْمَئِذٍ زُرْقًا

নীল চোখ বিশিষ্ট, দৃষ্টিহীন, অন্ধাবস্থা

أَزْرَقٌ ج زُرْقٌ

যে ব্যক্তি দয়াময় আল্লাহর স্মরণ থেকে চোখ ফিরিয়ে নেয় ৪৩:৩৬

وَمَن يَعْشُ عَن ذِكْرِ

দৃষ্টি ফিরানো, রাতকানা হওয়া, উদাসীন থাকা

عَشَا- يَعْشُو

ফলে তারা আরও অন্ধ বধির হয়ে গেল। :৭১

فَعَمُوا وَصَمُّوا

অন্ধ করে দেয়া

أَعْمَى-يُعْمِي

আর কোরআন তাদের জন্যে অন্ধত্ব। ৪১:৪৪

وَقْرٌ وَهُوَ عَلَيْهِمْ عَمًى

অন্ধত্ব

عَمًى

নিশ্চয় তারা ছিল অন্ধ। :৬৪

إِنَّهُمْ كَانُوا قَوْمًا عَمِينَ

মনের দিক দিয়ে অন্ধ

عَمِيٌ ج عَمُونَ

এবং তখনই তাদের বিবেচনাশক্তি জাগ্রত হয়ে উঠে। :২০১

فَإِذَا هُم مُّبْصِرُونَ

দৃষ্টিসম্পন্ন, বুঝমান, স্পষ্ট

مُبْصِرٌ (مُبْصِرَةٌ) ج مُبْصِرُونَ

অমনি তিনি দৃষ্টি শক্তি ফিরে পেলেন। ১২:৯৬

فَارْتَدَّ بَصِيرًا

পর্যবেক্ষক, দ্রষ্টা

بَصِيرٌ

এবং তারা ছিল হুশিয়ার।

২৯:৩৮

وَكَانُوا مُسْتَبْصِرِينَ

চক্ষুষ্মান, দর্শনকারী, বুঝমান

مُصْتَبْصِرٌ ج مُصْتَبْصِرُونَ

তারা বধির, মূক ও অন্ধ। সুতরাং তারা ফিরে আসবে না। (২-১৮)

صُمٌّ بُكْمٌ عُمْيٌ فَهُمْ لَا يَرْجِعُونَ

ফিরে আসা, প্রত্যাবর্তন করা

رَجَعَ-يَرْجِعُ (رَجْعٌ، رُجْعَى، مَرْجِعٌ)

যদি দ্বিতীয় স্বামী তালাক দিয়ে দেয়, তাহলে তাদের উভয়ের জন্যই পরস্পরকে পুনরায় বিয়ে করাতে কোন পাপ নেই। ২:২৩০

فَإِن طَلَّقَهَا فَلَا جُنَاحَ عَلَيْهِمَا أَن يَتَرَاجَعَا

প্রত্যাহার করে নেওয়া

تَرَاجَعَ-يَتَرَاجَعُ

যদি আমরা তোমাদের ধর্মে প্রত্যাবর্তন করি ৭:৮৯

إِنْ عُدْنَا فِي مِلَّتِكُم

পুনরাবৃত্তি করা

عَادَ-يَعُودُ

সে মনে করত যে, সে কখনও ফিরে যাবে না। ৮৪:১৪

إِنَّهُ ظَنَّ أَن لَّن يَحُورَ

ফিরে আসা

حَارَ-يَحُورُ

যদি ফিরে আসে, তবে তোমরা তাদের মধ্যে ন্যায়ানুগ পন্থায় মীমাংসা করে দিবে ৪৯:

فَإِن فَاءَتْ فَأَصْلِحُوا بَيْنَهُمَا بِالْعَدْلِ

প্রত্যাবর্তন করা

فَاءَ- يَفِيءُ

তাঁরই দিকে তোমরা প্রত্যাবর্তিত হবে। ২৯:২১

وَإِلَيْهِ تُقْلَبُونَ

উলটে যাওয়া, ফিরে আসা, ঘুরা

قَلَبَ - يَقْلبُ

তারা যখন তাদের পরিবার-পরিজনের কাছে ফিরত ৮৩:৩১

وَإِذَا انقَلَبُوا إِلَىٰ أَهْلِهِمُ

প্রত্যাবর্তনস্থল

اِنْقَلَبَ- يَنْقَلِبُ (مُنْقَلَبٌ)

শুনে রাখ, আল্লাহ তাআলার কাছেই সব বিষয়ে পৌঁছে। ৪২:৫৩

إِلَى اللَّهِ تَصِيرُ الْأُمُورُ

পৌছা বশীভুত করা

صَارَ- يَصِيرُ

আমরা তোমার দিকে প্রত্যাবর্তন করছি। :১৫৬

إِنَّا هُدْنَا إِلَيْكَ

ইহুদী হওয়া, ফিরে আসা

هَادَ-يَهُودُ

চিন্তা-ভাবনা তারাই করে, যারা আল্লাহর দিকে রুজু থাকে। ৪০:১৩

وَمَا يَتَذَكَّرُ إِلَّا مَن يُنِيبُ

প্রত্যাবর্তন করা

أَنَابَ- يُنِيبُ

তখন সে মুখ ফিরিয়ে বিপরীত দিকে পালাতে লাগল এবং পেছন ফিরে দেখল না। ২৮:৩১

وَلَّىٰ مُدْبِرًا وَلَمْ يُعَقِّبْ

পিছন ফেরা, ফিরে চাওয়া

عَقَّبَ- يُعَقِّبُ

অতঃপর আমি তাকে জননীর কাছে ফিরিয়ে দিলাম ২৮:১৩

فَرَدَدْنَاهُ إِلَىٰ أُمِّهِ

ফিরিয়ে দিয়া

رَدَّ-يَرُدُّ (رَدٌّ، مَرَدٌّ)

সে জামাটি তাঁর মুখে রাখল। অমনি তিনি দৃষ্টি শক্তি ফিরে পেলেন।

১২:৯৬

أَلْقَاهُ عَلَىٰ وَجْهِهِ فَارْتَدَّ بَصِيرًا

পিছন ফেরা, ফিরে চাওয়া

اِرْتَدَّ-يَرْتَدُّ

নিশ্চয় তাদের প্রত্যাবর্তন আমারই নিকট, ৮৮:২৫

إِنَّ إِلَيْنَا إِيَابَهُمْ

প্রত্যাবর্তন,

إيَابٌ

 

 

বৃষ্টি

صَيِّبٌ

যদি বৃষ্টির কারণে তোমাদের কষ্ট হয় অথবা তোমরা অসুস্থ হও তবে স্বীয় অস্ত্র পরিত্যাগ করায় তোমাদের কোন গোনাহ নেই

:১০২

وَلَا جُنَاحَ عَلَيْكُمْ إِن كَانَ بِكُمْ أَذًى مِّن مَّطَرٍ أَوْ كُنتُم مَّرْضَىٰ أَن تَضَعُوا أَسْلِحَتَكُمْ

বৃষ্টি, জলধারা, অঝোরধারা

مَطَرٌ (أَمْطَرَ-يُمْطِرُ)

যদি এমন প্রবল বৃষ্টিপাত নাও হয়, তবে হাল্কা বর্ষণই যথেষ্ট। :২৬৫

فَإِن لَّمْ يُصِبْهَا وَابِلٌ فَطَلٌّ

প্রবলবর্ষণ

وَابِلٌ

যদি এমন প্রবল বৃষ্টিপাত নাও হয়, তবে হাল্কা বর্ষণই যথেষ্ট। :২৬৫

فَإِن لَّمْ يُصِبْهَا وَابِلٌ فَطَلٌّ

ঝিরঝিরে হালকা বৃষ্টি

طَلٌّ

অতঃপর তুমি দেখ যে, তার মধ্য থেকে বারিধারা নির্গত হয়।

২৪:৪৩

فَتَرَى الْوَدْقَ يَخْرُجُ مِنْ خِلَالِهِ

বৃষ্টি

وَدْقٌ

মানুষ নিরাশ হয়ে যাওয়ার পরে তিনি বৃষ্টি বর্ষণ করেন এবং স্বীয় রহমত ছড়িয়ে দেন। ৪২:২৮

وَهُوَ الَّذِي يُنَزِّلُ الْغَيْثَ مِن بَعْدِ مَا قَنَطُوا وَيَنشُرُ رَحْمَتَهُ

বৃষ্টি দিয়ে সাহায্য করা

غَيثٌ

(غَاثَ- يَغُوثُ)

তিনি তোমাদের উপর অজস্র বৃষ্টিধারা ছেড়ে দিবেন, ৭১:১১

يُرْسِلِ السَّمَاءَ عَلَيْكُم مِّدْرَارًا

আধিক (বৃষ্টি)

مِدْرَارٌ