সুরা বাকারাহ (৩-৫)

যারা অদেখা বিষয়ের উপর বিশ্বাস স্থাপন করে এবং নামায প্রতিষ্ঠা করে। আর আমি তাদেরকে যে রুযী দান করেছি তা থেকে ব্যয় করে (২-৩)

الَّذِينَ يُؤْمِنُونَ بِالْغَيْبِ وَيُقِيمُونَ الصَّلَاةَ وَمِمَّا رَزَقْنَاهُمْ يُنفِقُونَ

দাঁড়করানো, সম্পন্নকরা, প্রতিষ্ঠিতকরা, উঠানো, অবস্থান করা

 

أَقَامَ-يُقِيْمُ (إقَامٌ، إقَامَةٌ)

এরপর আল্লাহ তাঁর আয়াতসমূহকে সু-প্রতিষ্ঠিত করেন (২২:৫২)

ثُمَّ يُحْكِمُ اللَّهُ آيَاتِهِ

মজবুত করা, সুদৃঢ় করা,

أَحْكَمَ-يُحْكِمُ

পর্বতকে তিনি দৃঢ়ভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন, (৭৯: ৩২)

وَالْجِبَالَ أَرْسَاهَا

প্রোথিত করা, স্থাপিত করা,

أَرْسَى-يُرْسِي

 

 

সালাত, নামায, দু’আ, ক্ষমা, দয়া

صَلَاةٌ ج صَلَوَاتٌ

অতঃপর তাদের জন্য নামাযে দাঁড়ান (৪:১০২)

فَأَقَمْتَ لَهُمُ الصَّلَاةَ

সালাত আদায় করা, দু’আ করা,

صَلَّى- يُصَلِّي

তারা বলবেঃ আমরা নামায পড়তাম না, (৭৪:৪৩)

قَالُوا لَمْ نَكُ مِنَ الْمُصَلِّينَ

নামাজ আদায়কারী

مُصَلٍّ ج مُصَلُّونَ

আর আমি তাদেরকে যে রুযী দান করেছি তা থেকে ব্যয় করে (২-৩)

وَمِمَّا رَزَقْنَاهُمْ يُنفِقُونَ

অন্ন দেয়া, ভোগ্যবস্তু দেয়া,

رَزَقَ-يَرْزُقُ (رِزْقٌ)

তাদের জন্যেও যাদের অন্নদাতা তোমরা নও। ১৫:২০

وَمَن لَّسْتُمْ لَهُ بِرَازِقِينَ

রিজিকদাতা, আহার্যদাতা

رَازِقٌ، رَزَّاقٌ ج رَازِقُونَ

আর আমি তাদেরকে যে রুযী দান করেছি তা থেকে ব্যয় করে (২-৩)

وَمِمَّا رَزَقْنَاهُمْ يُنفِقُونَ

ব্যয়করা, খরচ করা

أَنْفَقَ-يُنْفِقُ (إنْفَاقٌ)

তিনি যদি আমাদের প্রতি অনুগ্রহ দান করেন, তবে অবশ্যই আমরা ব্যয় করব (৯:৭৫)

لَئِنْ آتَانَا مِن فَضْلِهِ لَنَصَّدَّقَنَّ

দান করা, ক্ষমা করা

تَصَدَّقَ (اِصَّدَّقَ)- يَتَصَدَّقُ

তারা ধৈর্য্যধারণকারী, সত্যবাদী, নির্দেশ সম্পাদনকারী, সৎপথে ব্যয়কারী এবং শেষরাতে ক্ষমা প্রার্থনাকারী। (৩: ১৭)

الصَّابِرِينَ وَالصَّادِقِينَ وَالْقَانِتِينَ وَالْمُنفِقِينَ وَالْمُسْتَغْفِرِينَ بِالْأَسْحَارِ

খরচকারী, ব্যয়কারী, দানকারী

مُنْفِقٌ ج مُنْفِقُونَ

নিশ্চয় দানশীল ব্যক্তি ও দানশীলা নারী, যারা আল্লাহকে উত্তমরূপে ধার দেয়, তাদেরকে দেয়া হবে বহুগুণ এবং তাদের জন্যে রয়েছে সম্মানজনক পুরস্কার। (৫৭: ১৮)

إِنَّ الْمُصَّدِّقِينَ وَالْمُصَّدِّقَاتِ وَأَقْرَضُوا اللَّهَ قَرْضًا حَسَنًا يُضَاعَفُ لَهُمْ وَلَهُمْ أَجْرٌ كَرِيمٌ

দানশীল, দানকারী

مُصَّدِّقٌ (مُصَّدِّقَةٌ)، مُتَصَدِّقٌ ج مُصَّدِّقُونَ (مُصَّدِّقَاتٌ)

এবং যারা যাকাত দানকারী এবং যারা আল্লাহ ও কেয়ামতে আস্থাশীল। (৪:১৬২)

وَالْمُؤْتُونَ الزَّكَاةَ وَالْمُؤْمِنُونَ بِاللَّهِ وَالْيَوْمِ الْآخِرِ

দাতা, প্রদানকারী, দানকারী

مُوْتٍ ج مُوتُونَ

যারা কৃপণতা করছে, তারা নিজেদের প্রতিই কৃপণতা করছে।

(৪৭:৩৮)

وَمَن يَبْخَلْ فَإِنَّمَا يَبْخَلُ عَن نَّفْسِهِ

ব্যয়কুণ্ঠহওয়া, কৃপণতাকরা

بَخِلَ-يَبْخَلُ (بُخْلٌ)

সম্পদ পুঞ্জীভূত করেছিল, অতঃপর আগলিয়ে রেখেছিল (৭০:১৮)

وَجَمَعَ فَأَوْعَىٰ

কৃপণতা করা, সংরক্ষণ করা, মনের ভেতর লুকিয়ে রাখা

أَوْعَى-يُوْعِي

এবং দেয় সামান্যই ও পাষাণ হয়ে যায়। (৫৩:৩৪)

وَأَعْطَىٰ قَلِيلًا وَأَكْدَىٰ

কৃপণতা করা, অল্প দেয়া, বিরত থাকা

أَكْدَى-يُكْدِي

কৃপণতাও করে না এবং তাদের পন্থা হয় এতদুভয়ের মধ্যবর্তী।

(২৫:৬৭)

وَلَمْ يَقْتُرُوا وَكَانَ بَيْنَ ذَٰلِكَ قَوَامًا

কৃপণতা করা, সংকীর্ণমনা হওয়া,

قَتَرَ- يَقْتُرُ

মানুষ তো অতিশয় কৃপণ।

(১৭:১০০)

وَكَانَ الْإِنسَانُ قَتُورًا

কৃপণ, ব্যয়কুণ্ঠ, বিষণ্ণ

قَتُورٌ

আর যখন কল্যাণপ্রাপ্ত হয়, তখন কৃপণ হয়ে যায়। (৭০:২১)

وَإِذَا مَسَّهُ الْخَيْرُ مَنُوعًا

কৃপণ, নিবারক, নিষেধকারী

مَنُوعٌ

যারা মনের কার্পণ্য থেকে মুক্ত

(৫৯:৯)

وَمَن يُوقَ شُحَّ نَفْسِهِ

কৃপণতা, লোভ

شُحٌّ

তারা তোমাদের প্রতি কুন্ঠাবোধ করে। (৩৩:১৯)

أَشِحَّةً عَلَيْكُمْ

কৃপণ, লোভী

شَحِيحٌ (ج) أَشِحَّةٌ

তিনি অদৃশ্য বিষয় বলতে কৃপনতা করেন না।  (৮১:২৪)

وَمَا هُوَ عَلَى الْغَيْبِ بِضَنِينٍ

কৃপণ, মিতবাক

ضَنِينٌ

এবং যারা বিশ্বাস স্থাপন করেছে সেসব বিষয়ের উপর যা কিছু তোমার প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে এবং সেসব বিষয়ের উপর যা তোমার পূর্ববর্তীদের প্রতি অবতীর্ণ হয়েছে।  (২-৪)

وَالَّذِينَ يُؤْمِنُونَ بِمَا أُنزِلَ إِلَيْكَ وَمَا أُنزِلَ مِن قَبْلِكَ

অবতীর্ণকরা, নামিয়ে আনা

أَنْزَلَ-يُنْزِلُ

যে সত্য অবর্তীর্ণ হয়েছে (৫৭:১৬)

وَمَا نَزَلَ مِنَ الْحَقِّ

অবতীর্ণ হওয়া, নেমে আসা,

نَزَلَ-يَنْزِلُ

তিনি আপনার প্রতি কিতাব নাযিল করেছেন (৩:৩)

نَزَّلَ عَلَيْكَ الْكِتَابَ

ক্রমান্বয়ে নাজিল করা

نَزَّلَ-يُنَزِّلُ (تَنْزِيلٌ)

নিশ্চয় সে তাকে আরেকবার দেখেছিল, (৫৩:১৩)

وَلَقَدْ رَآهُ نَزْلَةً أُخْرَىٰ

অবতরণ

نَزْلَةٌ

আমরা এই জনপদের অধিবাসীদের উপর আকাশ থেকে আযাব নাজিল করব (২৯:৩৪)

إِنَّا مُنزِلُونَ عَلَىٰ أَهْلِ هَٰذِهِ الْقَرْيَةِ رِجْزًا مِّنَ السَّمَاءِ

একত্রে অবতীর্ণকারী, নাজিলকারী

مُنْزِلٌ ج مُنْزِلُونَ

আল্লাহ বললেনঃ নিশ্চয় আমি সে খাঞ্চা তোমাদের প্রতি অবতরণ করব। (৫:১১৫)

قَالَ اللَّهُ إِنِّي مُنَزِّلُهَا عَلَيْكُمْ

ক্রমান্বয়ে অবতীর্ণকারী,

مُنْزِّلٌ

তুমি শ্রেষ্ঠ অবতারণকারী। (২৩:২৯)

وَأَنتَ خَيْرُ الْمُنزِلِينَ

অবতীর্ণ, অবতরণস্থল

مُنْزَلٌ

তারা নিশ্চিত জানে যে, এটি আপনার প্রতি পালকের পক্ষ থেকে সত্যসহ অবর্তীর্ন হয়েছে। (৬:১১৪)

يَعْلَمُونَ أَنَّهُ مُنَزَّلٌ مِّن رَّبِّكَ بِالْحَقِّ

অবতীর্ণ, অবতরণস্থল

مُنَزَّلٌ

 

 

আগে, সামনে, পূর্বে

قَبْلَ

এই রসূলগণ-আমি তাদের কাউকে কারো উপর মর্যাদা দিয়েছি। (২:২৫৩)

تِلْكَ الرُّسُلُ فَضَّلْنَا بَعْضَهُمْ عَلَىٰ بَعْضٍ

পরে, পশ্চাতে, অতঃপর

بَعْدَ

পরকালের গৃহ আরও উত্তম (১৬: ৩০)

وَلَدَارُ الْآخِرَةِ خَيْرٌ

পরকাল

الآخِرَةُ

এ জগতে সৎকাজ করে, তাদের জন্যে কল্যাণ রয়েছে (১৬:৩০)

لِّلَّذِينَ أَحْسَنُوا فِي هَٰذِهِ الدُّنْيَا حَسَنَةٌ

এ জগত, পৃথিবী

الدُنْياَ

আমি সেসব লোককে যা ইচ্ছা সত্ত্বর দিয়ে দেই। (১৭:১৮)

عَجَّلْنَا لَهُ فِيهَا

ক্ষিপ্র জগত, ইহজগত, তরাশীল

عَاجِلَةٌ

আর আখেরাতকে যারা নিশ্চিত বলে বিশ্বাস করে। (২-৪)

وَبِالْآخِرَةِ هُمْ يُوقِنُونَ

দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করা

أَيْقَنَ-يُوقِنُ

যাতে কিতাবীরা দৃঢ়বিশ্বাসী হয়

(৭৪:৩১)

لِيَسْتَيْقِنَ الَّذِينَ أُوتُوا الْكِتَابَ

দৃঢ়ভাবেবিশ্বাসকরা, সুনিশ্চিত জানা

اِسْتَيْقَنَ-يَسْتَيْقِنُ

যাতে সে দৃঢ় বিশ্বাসী হয়ে যায়।

(৬:৭৫)

وَلِيَكُونَ مِنَ الْمُوقِنِينَ

দৃঢ়ভাবেবিশ্বাসস্থাপনকারী

مُوقٍ ج مُوقِنُونَ

এ বিষয়ে আমরা নিশ্চিত নই।

(৪৫:৩২)

وَمَا نَحْنُ بِمُسْتَيْقِنِينَ

দৃঢ়বিশ্বাসী

مُسْتَيقِنٌ ج مُسْتَيْقِنُونَ

তাদের ব্যাপারে সন্দেহ হলে তাদের ইদ্দত হবে তিন মাস (৫:১০৬)

إِنِ ارْتَبْتُمْ فَعِدَّتُهُنَّ ثَلَاثَةُ أَشْهُرٍ

সন্দেহ করা, দ্বিধাগ্রস্ত হওয়া

اِرْتَابَ- يَرْتِيبُ

অতঃপর তারা সতর্কবাণী সম্পর্কে বাকবিতন্ডা করেছিল। (৫৪:৩৬)

فَتَمَارَوْا بِالنُّذُرِ

সন্দেহ করা, তর্কাতর্কি করা

تَمَارَى- يَتَمَارَى

কাজেই তোমরা কেয়ামতে সন্দেহ করো না এবং আমার কথা মান।

(৪৩:৬১)

فَلَا تَمْتَرُنَّ بِهَا وَاتَّبِعُونِ

সন্দেহ করা, সন্দেহ করে ঝগড়া করা

امْتَرَى- يَمْتَرِي

এমনিভাবে আল্লাহ সীমালংঘনকারী, সংশয়ী ব্যক্তিকে পথভ্রষ্ট করেন।

(৪০:৩৪)

كَذَٰلِكَ يُضِلُّ اللَّهُ مَنْ هُوَ مُسْرِفٌ مُّرْتَابٌ

সন্দেহকারী, সন্দিহান

مُرْتَابٌ

কাজেই তুমি কস্মিনকালেও সন্দেহকারী হয়ো না। (১০:৯৪)

فَلَا تَكُونَنَّ مِنَ الْمُمْتَرِينَ

সন্দেহকারী, দ্বিধাগ্রস্ত

مُمْتَرٍ ج مُمْتَرُونَ

আর তারাই যথার্থ সফলকাম।

(২-৫)

وَأُولَٰئِكَ هُمُ الْمُفْلِحُونَ

সফল, ক্রৃতকার্য, সার্থক

مُفْلِحٌ ج مُفْلِحُونَ (أفْلَحَ-يُفْلِحُ)

তারাই কৃতকার্য। (২৪:৫২)

فَأُولَٰئِكَ هُمُ الْفَائِزُونَ

সফল, ক্রৃতকার্য, সার্থক

فَائِزٌ ج فَائِزُونَ (فَازَ- يَفُوزُ)

ওরা বঞ্চিত হয়ে ফিরে যায়।

(৩:১২৭)

فَيَنقَلِبُوا خَائِبِينَ

ব্যর্থ, অসফল, নিরাশ, হতাশ, অক্ষম

خَائِبٌ ج خَائِبُونَ (خَابَ- يَخِيبُ)

আপনি ভয় প্রদর্শন করুন আর নাই করুন তাতে কিছুই আসে যায় না (২-৬)

سَوَاءٌ عَلَيْهِمْ أَأَنذَرْتَهُمْ أَمْ لَمْ تُنذِرْهُمْ

সমান, সমতুল্য, যথাযথ, মধ্যভাগ

سَوَاءٌ